Main Menu

নির্বাচনী সভা, ফের আলোচনা সভার নামে

ফরিদপুরের বোয়ালমারীতে উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে গতকাল সোমবার মহান বিজয় দিবস উদ্‌যাপন উপলক্ষে বিশেষ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে ফরিদপুর-১ আসনে (বোয়ালমারী-আলফাডাঙ্গা-মধুখালী) আওয়ামী লীগের প্রার্থী মনজুর হোসেন বুলবুল। সভায় ঘুরেফিরে নির্বাচন–সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আলোচনা হয়েছে, যা আচরণবিধি লঙ্ঘনের শামিল।

বোয়ালমারী উপজেলা সদরের স্টেশন সড়কে বিলাসী শপিং কমপ্লেক্সের তৃতীয় তলার মিলনায়তন কক্ষে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। বেলা সাড়ে ১১টা থেকে এ সভা শুরু হয়ে শেষ হয় বেলা ৩টার দিকে। ওই সভায় উপস্থিত সহস্রাধিক নেতা-কর্মীর সবাইকে প্যাকেট বিরিয়ানি ও বোতলজাত পানি দেওয়া হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, সভার সভাপতি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এম মোশাররফ হোসেন সূচনা বক্তব্যে উপস্থিত নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে বলেন, ‘বাইরে প্রশাসনের বিধিনিষেধ আছে। ১০ ডিসেম্বরের আগে নির্বাচনী সভা–সমাবেশ করা যাবে না। তাই কেউ মুঠোফোনে এই সভার ভিডিও ধারণ বা লাইভ দেখাবেন না। আমার নজরে পড়লে মুঠোফোনটি কেড়ে নিয়ে যাব।’

মোশাররফ হোসেন আরও বলেন, ‘ব্যানারে মহান বিজয় দিবসের আলোচনার কথা উল্লেখ থাকলেও মূলত ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচন নিয়ে দিকনির্দেশনা দিতে আপনাদের আজ ডাকা হয়েছে। এটি দলের বিশেষ বর্ধিত সভা।’

সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী অবসরপ্রাপ্ত জ্যেষ্ঠ সচিব মনজুর হোসেন। বক্তব্য দেন ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি লিয়াকত সিকদার, ঢাকা মহানগর (দক্ষিণ) আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও হোমিওপ্যাথিক বোর্ডের চেয়ারম্যান দিলীপ কুমার রায়, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি খসরুজ্জামান, আলফাডাঙ্গা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এম এম জালাল উদ্দিন আহমেদ, আলফাডাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এস এম আকরাম হোসেন প্রমুখ।

মনজুর হোসেন বলেন, আগামী নির্বাচন হাতের মুঠোয় আনার জন্য আজকের সভায় নেতারা যে নির্দেশনা দিয়েছেন, তৃণমূল নেতাদের সঠিকভাবে পালন করতে হবে। কেননা ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনে এ আসনের ভোটাররা ভুল করলে উন্নয়ন থেমে যাবে, অনেক বড় ক্ষতি হয়ে যাবে।

সভা সঞ্চালনা করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহাজাহান মৃধা। তিনি বলেন, ‘বিজয় দিবস উদ্‌যাপন উপলক্ষে সভার আয়োজন করা হয়েছিল। সেখানে নির্বাচনের বিষয় নিয়েও কথা হয়েছে। আমরা ঘরের মধ্যে অনুষ্ঠান করেছি। এতে আচরণবিধি লঙ্ঘন হয়েছে কি না জানি না।’